BD Arena

হৃদরোগের আশঙ্কা কমে আনারসে

Go down

হৃদরোগের আশঙ্কা কমে আনারসে

Post by Tonmoy on Fri Dec 16, 2011 1:37 am



[You must be registered and logged in to see this image.]


আনারসের রসেই কি লুকিয়ে রয়েছে হৃদরোগ ঠেকানোর দাওয়াই! নিয়মিত আনারস খেলে হৃদরোগ হওয়ার আশঙ্কা কমে বলে দাবি করছেন গবেষকরা। আনারসের এই উপকারিতা সম্পর্কে আমেরিকার ইউনিভার্সিটি অব কানেকটিকাট হেলথ সেন্টারের সঙ্গে যৌথভাবে গবেষণা করেছিল যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুড টেকনোলজি বিভাগ। প্রথম ধাপে ইঁদুরের ওপরে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়ে সাফল্য পেয়েছেন তারা। এবার তারা বাঁদর এবং পরবর্তী পর্যায়ে মানুষের ওপরে পরীক্ষা করতে চান। ওই দুই ক্ষেত্রেও ভালো ফল মিলবে বলে আশাবাদী গবেষকরা। শারীরবিদ্যার আন্তর্জাতিক গবেষণা পত্রিকা �জার্নাল অব ফিজিওলজি�তে সম্প্রতি এই সংক্রান্ত গবেষণাপত্রটি প্রকাশিত হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, আনারসে থাকা ব্রোমিলিন উেসচক রক্তে জমাট বেঁধে থাকা একাধিক প্রোটিন-পদার্থকে পরিষ্কার করে দেয়। ফলে হৃদযন্ত্রের রক্ত সঞ্চালনও স্বাভাবিক থাকে।


যাদবপুরের গবেষকরা দুই সপ্তাহ ধরে ৩০০টি ইঁদুরকে দিনে দুবার করে ব্রোমিলিন ইঞ্জেকশন দিয়েছিলেন। পাশাপাশি ছিল আরও ১০০টি ইঁদুর, যাদের ওই ইঞ্জেকশন দেয়া হয়নি। দুই সপ্তাহ পরে ব্রোমিলিন দেয়া ইঁদুরগুলোর হৃদযন্ত্রে অক্সিজেন সরবরাহ ক্রমাগত কমিয়ে ইস্কিমিয়া বা খিঁচুনি তৈরি করেন তারা। যাদবপুরের ফুড টেকনোলজির গবেষক-শিক্ষক উত্পল রায় চৌধুরী বলেন, ‘ইস্কিমিয়া শুরু হওয়ার পরে ইঁদুরগুলোকে দুই ঘণ্টা ধরে অক্সিজেন দেয়া হয়। দেখা যায় অক্সিজেন নিতে গিয়ে হৃদযন্ত্রের কোষ নষ্ট হচ্ছে এবং অক্সিজেন দেয়ার সময় ৩০ মিনিট, ১ ঘণ্টা, দেড় ঘণ্টা এবং দুই ঘণ্টায় হৃদযন্ত্রের চাপ, বাম অলিন্দে রক্তের চাপ বৃদ্ধির হার, বিভিন্ন ধমনীর মধ্যে রক্ত সঞ্চালন কতটা হচ্ছে, তার হিসাব রাখা হয়েছিল। দেখা গিয়েছে, ব্রোমিলিন না পাওয়া ইঁদুরের তুলনায় ব্রোমিলিন পাওয়া ইঁদুরের রক্তের চাপ প্রতি সেকেন্ডে অনেকটা বেড়েছে। ব্রোমিলিন পাওয়া ইঁদুরের কোষের মৃত্যু হয়েছে ২৮%। যেখানে ব্রোমিলিন না পাওয়া ইঁদুরের কোষের মৃত্যু হয়েছে ৩৭%।’ এছাড়াও, ব্রোমিলিন পাওয়া ইঁদুরগুলো ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছে। কিন্তু যে ইঁদুরগুলোকে ব্রোমিলিন দেয়া হয়নি, তাদের ইস্কিমিয়া ঠিক হয়নি। রক্ত সঞ্চালনও ব্যাহত হয়েছে। ফলে ‘হার্টব্লক রয়েই গিয়েছে বলে দাবি গবেষকদের। এই গবেষণায় সাফল্য পাওয়ার পরে উত্পলবাবু নিশ্চিত, ‘নিয়মিত আনারস, বিশেষত আনারসের ভেতরে থাকা দণ্ডের মতো অংশের রস রক্তে জিলেটিনের মতো ভারী, ঘন প্রোটিন পদার্থ, কোলেস্টেরল জমে থাকতে দেয় না। ওই রসে থাকা ব্রোমিলিনের প্রভাবে হৃদরোগের সম্ভাবনাও কমে যায় বলে প্রমাণ পেয়েছি আমরা।

ব্ল্যাক টি বা রসুনের সঙ্গেও আনারসের রস মিশিয়ে খেলে উপকার মিলবে।’

Tonmoy
Junior Member
Junior Member

Posts : 117
Join date : 2011-11-26

Back to top Go down

Back to top


 
Permissions in this forum:
You cannot reply to topics in this forum